দেশজুড়ে চলছে লকডাউন ভালো নেই তাঁত শিল্পীরা - SAIKOTBHUMI

Breaking

Sunday, April 12, 2020

দেশজুড়ে চলছে লকডাউন ভালো নেই তাঁত শিল্পীরা






 সঞ্জীব মল্লিক, বাঁকুড়া : খটাখট শব্দে আপন মনে তাঁত বুনে চলেছেন সোনামুখীর তাঁত শিল্পীরা । কিন্তু আর কতদিন তারা এই কাজ চালিয়ে যেতে পারবেন তাই নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয় । এই মুহূর্তে বিশ্বে আতঙ্কের আর এক নাম নোবেল করোনাভাইরাস । ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য গোটা দেশজুড়ে চলছে লকডাউন । গৃহবন্দি হয়ে রয়েছেন দেশের ১৩০ কোটি সাধারণ মানুষ । আর এমতাবস্তায় সবথেকে বেশি সমস্যায় পড়তে হয়েছে দিনমজুরির সঙ্গে যুক্ত শ্রমিকদের ।



এই যেমন বাঁকুড়া জেলার প্রাচীন পৌর শহর সোনামুখী , সোনামুখীর এক ঐতিহ্য তাঁত শিল্প । সোনামুখীর তাঁত শিল্প শুধুমাত্র এ রাজ্যে নয় রাজ্যের গন্ডি পেরিয়ে এমনকি দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিদেশেও খ্যাতি অর্জন করেছে । সোনামুখীতে মূলত সিল্ক শাড়ি থ্রিডি শাড়ি বিখ্যাত । সোনামুখী পৌর শহরের কয়েকশো তাঁত শিল্পি এই তাঁত শিল্পের উপর নির্ভর করে সারাবছর নিজেদের সংসার চালানোর অর্থ উপার্জন করে থাকেন । কিন্তু এই মুহূর্তে তাদের সংসার চালানো দায়ভার হয়ে দাঁড়িয়েছে । সারাদিন যে কাপড়টা তৈরি করে একটা সময় 300 থেকে 400 টাকা মজুরি পেতেন কিন্তু বর্তমানে কাজ করলেও 100 থেকে 200 টাকার বেশি মজুরি পাচ্ছেন না । কেননা কাপড় বিক্রি নাহলে মহাজনরাই বা কোথা থেকে তাদের দিনমজুর দেবেন । ফলে অর্ধেক টাকায় রয়ে যাচ্ছে মহাজনের কাছে । ফলে রীতিমতো সাংসারিক অনটনের মধ্যে পড়তে হয়েছে এই তাঁত শিল্পীদের । এখন তারা তাকিয়ে রয়েছেন কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে সচ্ছন্দে ফিরে আসে তাঁত শিল্প ।



যদিও সোনামুখী পৌরসভা সর্বদাই সোনামুখীর বিভিন্ন ওয়ার্ডের সাধারণ মানুষদের পাশে থাকার চেষ্টা করছেন । ইতিমধ্যেই সকলকে সোনামুখী থানা এবং সোনামুখী পৌরসভার উদ্যোগে চাল ডাল আটা তেল সোয়াবিন সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য প্রদান করা হয়েছে । সাধারণ মানুষদের বিশেষ করে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলোকে যাতে না খেয়ে দিন কাটাতে না হয় সেদিকে নজর রয়েছে সোনামুখী পৌরসভার ।



সদানন্দ সুর বাবলু সুর নামে 11 নম্বর ওয়ার্ডের তাঁত শিল্পীরা বলেন , লকডাউন এর ফলে বাইরে থেকে কাঁচামাল আসছে না যেটুকু রয়েছে তাই দিয়ে আজ পর্যন্ত কাজ চালিয়ে নিলাম তবে কারো কারো আবার কাজ বন্ধ হয়ে গিয়েছে । একটা কাপড় বুনে 400 টাকা মজুরি পায় মহাজন' আমাদেরকে এখন 200 টাকা দিচ্ছেন বাকিটা কবে দেবে তা অজানা । তাই এই মুহূর্তে সংসার চালাতে খুবই সমস্যায় পড়তে হচ্ছে । সরকার যদি একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় খুবই ভালো হয় ।



সঞ্জয় গুই নামে এক তাঁত ব্যবসায়ী ( মহাজন ) বলেন , লক ডাউন এর জন্য এই মুহূর্তে ট্রান্সপোর্ট বন্ধ হয়ে রয়েছে ফলে বাইরে থেকে কাঁচামাল আমদানি হচ্ছে না । তার ওপর উৎপাদিত কাপড় বাইরে রপ্তানিও করতে পারছিনা ফলে বাড়িতেই জমায়েত করে রাখতে হচ্ছে উৎপাদিত শাড়ি । এর ফলে আমরা তাঁত শিল্পীদের ন্যায্য মজুরি দিতে পারছিনা । তাই এরকম পরিস্থিতিতে সরকার তাঁত শিল্পীদের পাশে দাঁড়ালে খুবই ভালো হয় ।



এ বিষয়ে সোনামুখী পৌরসভা পৌরপিতা মাননীয় সুরজিৎ মুখোপাধ্যায় বলেন , সোনামুখী শহর এবং ব্লক সমস্ত এলাকার সাধারণ মানুষদের সর্বদাই আমরা খোঁজ-খবর রাখছি । মানুষের পাশে থাকা এটা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব আমরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকে এটা শিখেছি । তাদের যাতে কোনো সমস্যা না হয় সে ব্যাপারে আমরা সর্বদাই নজর রেখে চলেছি ।


Pages