লকডাউনের জেরে শিকেয় উঠেছে পর্যটক শিল্প - SAIKOTBHUMI

Breaking

Friday, April 17, 2020

লকডাউনের জেরে শিকেয় উঠেছে পর্যটক শিল্প



সুভাষ মিশ্র,দিঘা : লকডাউনের জেরে শিকেয় উঠেছে পর্যটক শিল্প। গৃহবন্দী ব্যবসায়ীরা। এমনকি হোটেল বন্দী হয়ে রয়েছেন কর্মীরা। কবে উঠবে লকডাউন। কবেই বা ফের দিঘা হবে জমজমাট। তারই প্রতিক্ষায় প্রহর গুনছেন সকলে। লকডাউন উঠলে পর্যটন শিল্পে যুক্ত ব্যবসায়ী সহযোগিতার জন্যে রাজ্য সরকারের কাছে আবেদন জানানোর প্রস্তুত নিয়েছেন বলে জানাগিয়েছে। দিঘা–শংকরপুর উন্নয়ন পর্ষদের সদস্য তথা সভাধিপতি দেবব্রত দাস জানান, করোনা সংক্রমনের ফলে লকডাউন জারি হয়েছে দেশজুড়ে। ফলে পর্যটন শিল্প মুখ থুবড়ে পড়েছে। স্বাভাবিক ছন্দে ফেরার অপেক্ষায় রয়েছি আমরা সকলে।
              দিঘা,মন্দারমণি,তাজপুর এবং শংকরপুর পর্যটন কেন্দ্রে সপ্তাহে কয়েকলক্ষ পর্যটক বেড়াতে আসেন। মরশুমেতো বলার নেই। প্রতিদিন গড়ে একলক্ষ পর্যটক বেড়াতে আসেন। মার্চ ও এপ্রিল মাসের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হয়ে যায়। তারপর স্কুলগুলোতেও গরমের ছুটি পড়ে যায়। ফলে ভিড় বাড়ে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার উপকূলীয় পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে। কিন্তু এবার করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে লকডাউন ঘোষনা করেছে কেন্দ্র সরকার। প্রথমে ২১দিন লকডাউন ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় লকডাউন চলছে। আগামী ৩মে সেই দ্বিতীয় পর্যায়ের লকডাউনের পরিসমাপ্তি হবে। তারপরেও লকডাউন বাড়বে কি না তা এখনও জানানেই কারোরই। এদিকে লকডাউনের জেরে হোটেল বন্ধ। হোটেলেই আটকে আছেন কর্মীরা। যানবাহন চলাচল না করায় দুরদূরান্ত থেকে হোটেলে কাজ করতে আসা কর্মীরা বাড়ি ফিরতে না পেরে হোটেলে আটকে রয়েছে। যদিও তাদের তেমন অসুবিধে হচ্ছে না। কিন্তু হোটেল খোলার আশায় দিনগুনছেন হোটেল কর্মী থেকে ব্যবসায়ীরা।  এদিকে দিঘা পর্যটক শূন্য হওয়ায় নেই কোন কোলাহল, শান্ত রয়েছে সমুদ্র। এমনকি সৈকতে অনায়াসে ঘুরে বেড়াচ্ছে লালকাঁকড়া,সামুক,ঝিনুক। প্রাকৃতিক নিয়মে সমুদ্রপাড়ের পরিবেশ যেন অন্যএক মাত্রা যোগ করেছে। কিন্তু পর্যটন শিল্পের সঙ্গে যুক্ত হোটেল ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি ঘোড়সাওয়ারী থেকে ফুটপাতের ব্যবসায়ীরা যাদের রোজকার রোজগারে সংসার চলে তা বেহাল অবস্থা। তাদের দিন কাটছে সমস্যার মধ্যে দিয়ে। তাই তাদের প্রার্থনা একটাই,দ্রুত করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কেটে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরুক দেশ।

 ই–পেপার পড়তে ক্লিক করুন–


Pages