স্বস্তি কাঁথিতে ! মনসাতলার যুবকের শরীরে মেলেনি সংক্রমণ,গুজব ছড়াবেন না, মনিটরিং শুরু সোস্যাল মিডিয়ায় - SAIKOTBHUMI

Breaking

Friday, April 3, 2020

স্বস্তি কাঁথিতে ! মনসাতলার যুবকের শরীরে মেলেনি সংক্রমণ,গুজব ছড়াবেন না, মনিটরিং শুরু সোস্যাল মিডিয়ায়





নিজস্ব সংবাদদাতা : স্বস্তি ফিরল কাঁথিবাসীর। মনসাতলার যুবকের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া যায়নি। তিনি সুস্থই রয়েছেন। আতঙ্কিত হবেন না। লকডাউন মেনে চলুন। সুস্থ থাকুন। অযথা বাড়ির বাইরে বেরোবেন না।

সূত্রের খবর, কর্মসূত্রে ব্যাঙ্গালোরে থাকতেন। লকডাউনের আগেই বাড়ি ফিরে আসেন। কিন্তু ব্যাঙ্গালোর থেকে যশবন্তপুর ট্রেনে চেপে বাড়ি ফেরার সময় সহযাত্রী ছিলেন কলকাতার এক যুবক। তিনি কলকাতায় ফিরে শারীরিক অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে কলকাতার একটি হাসপাতালে আইসোলেশানে রাখা হয়। তিনি কার সঙ্গে মিশেছেন জানার চেষ্টা করেন স্বাস্থ্য দফতরের কর্মীরা। তিনি তখন জানান, কাঁথি মনসাতলা গ্রামের ঐ যুবকের কথা। তবে কাঁথির যুবক খড়গপুর স্টেশানে নেমে বাড়ি আসেন। কয়েকদিন বাড়ির মধ্যেই ছিলেন। তবে স্বাস্থ্য দফতর কাঁথির যুবকের কথা জানার পরে কাঁথি মহকুমা হাসাপাতালকে জানায়। হাসপাতালের পক্ষ থেকে কাঁথি থানার পুলিশকে জানানো হয়। পুলিশ বুধবার যুবককে কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে আইসোলেশানে রাখার ব্যবস্থা করে। যুবকে শরীরে করোনা জীবাণু রয়েছে কি না তা জানতে নাইসেডে পাঠায় কাঁথি মহকুমা হাসপাতাল। কিন্তু শুক্রবার রাতে নাইসেডের রিপোর্টে নেগেটিভ আসে। এদিকে যুবককে হাসাপাতালে নিয়ে যাওয়ার খবরেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন কাঁথির মানুষ। কিছু গুজব খবরও উঠতে শুরু করে। অবশেষে শুক্রবার রাতে নেগেটিভ রিপোর্ট আসার পরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন কাঁথির মানুষজন। এদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারি তথ্য ছাড়া কোন কিছুতেই বিশ্বাস না করার আবেদন জানিয়েছেন বারবার। এমনকি, কোনভাবেই গুজব যাতে না ছাড়ানো হয় সেদিকে নজর রাখার আবেদন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপরেও এমন বাড়বাড়ন্তের নিন্দা প্রকাশ করেন কাঁথির বুদ্ধীজীবী মহল। ফেসবুকে গর্জে ওঠেন অনেকেই। কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে সুপার সব্যসাচী চক্রবর্তী জানান, নািসেডের রিপোর্টে যুবকের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া যায়নি। তাই তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে ১৪দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে।  
    
           এদিকে সোস্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানো রুখতে ইতিমধ্যে পুলিশ মনিটরিং করতে শুরু করেছে। সোস্যাল মিডিয়ায় কোনরকম গুজব কিংবা ভুয়ো খবর ছড়ালে গ্রেপ্তার পর্যন্ত করতে পারে পুলিশ।
আতঙ্কিত হবেন না, ঘরের মধ্যে থাকুন,প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বেরোবেন না। শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শনিন। লকডাউন মেনে চলুন।







Pages