EXCLUSIVE ! অবসাদ কাটাতে লকডাউনে শিকার হচ্ছে পরিযায়ী পাখি.চরম শাস্তির দাবি এলাকাবাসীর - SAIKOTBHUMI

Breaking

Tuesday, March 31, 2020

EXCLUSIVE ! অবসাদ কাটাতে লকডাউনে শিকার হচ্ছে পরিযায়ী পাখি.চরম শাস্তির দাবি এলাকাবাসীর



শুভেন্দু কামিল্যা, খেজুরি : লক ডাউনের নিস্তব্ধতায় মানুষ যখন গৃহবন্দী , সহজেই বিচরণ করছে পশুপাখিরা। সেইসুযোগে  হলুদ বাড়ি এলাকায় চলছে পরিযায়ী পাখি শিকার । আর এই পাখি শিকারে মেতে উঠেছে এলাকারই বেশ কয়েকজন যুবক। ছুটির মেজাজে বেশিরভাগ মানুষ এখন বাড়ির মধ্যে, সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে চলছে পাখি শিকার। খেজুরির  হলুদবাড়ি এলাকায় চলছে এই পাখি শিকারের কাজ। মূলত লক ডাউনের জেরে অবসাদ কাটাতেই এই পাখি শিকার হচ্ছে। রাতে মদের আসরে সেরা খাওয়ার হিসেবে থাকছে এই পাখির মাংস। একটি পাখি মারলে প্রায় দু কেজি থেকে আড়াই কেজি মাংস পাওয়া যায় ।


কয়েকদিন ধরে এই ভাবে পাখি শিকার হয়ে আসছে বলে জানান এলাকার সমাজ কর্মী দেবাঞ্জন গুচ্ছাইত। তিনি জানান, লক ডাউন এর সুযোগকে কাজে লাগিয়ে পরিযায়ী পাখি শিকার করা হচ্ছে।




পরিবেশ শান্ত হওয়ায় হলুদবাড়ি এলাকায় প্রতিদিন প্রচুর শামুখ খোল পাখি সহ বিভিন্ন পরিযায়ী পাখির ভীড় লক্ষ করা গেছে, এই সুযোগে বন্ধুক ও পাখি শিকারের খাঁচা দিয়ে প্রতিদিনই চলছে পাখি শিকার।  হাতেনাতে পাখি শিকারিদের ধরে ফেলে স্থানীয়রা। এরপর বিষয়টি ব্লক প্রশাসনের নজরে আনেন স্থানীয় সমাজ কর্মী। বিডিও রমল সিং বির্দি এরপর বন দপ্তরের অধিকারীকদের বিষয়টি জানান। বাজকুল ফরেস্ট রেঞ্জ এর আধিকারিকরা গ্রামবাসীদের কাজ থেকে উদ্ধার হওয়া পাখি নিজেদের হেফাজতে নেন। মূলত এশিয় শামুকখোল পাখি মাঠ, মিষ্টি জলাশয়, হ্রদ, ধানক্ষেত, উপকূলীয় বন ও নদীর পাড়ে বিচরণ করে। সচরাচর ছোট ঝাঁকে থাকে। বড় জঙ্গলে রাত্রিবাস ও প্রজনন করে। খাবারের অভাব না হলে এরা সাধারণত এক জায়গা থেকে নড়ে না। কমবয়সী শামুকখোলেরা উড়তে শেখার পর বিশাল অঞ্চল পরিভ্রমণ করে।ভোরে আবাস ছেড়ে খাদ্যের সন্ধানে বের হয়, ডানা ঝাপটিয়ে  দল বেঁধে জলাভূমির দিকে উড়ে যায়। দিনের উষ্ণতম সময়ে ডানা না নাড়িয়ে বিশেষ কৌশলে ধীরে ধীরে চক্রাকারে আকাশের উঁচুতে উঠে যায় আর দল বেঁধে ঘুরতে থাকে। আবার জলাশয়ের একদিক থেকে আরেকদিকে ক্রমান্বয়ে উড়ে উড়ে খাদ্য খুঁজে বেড়ায়। জলাশয়ের ধারে বা অগভীর জলাশয়ে হেঁটে হেঁটে কাদায় ঠোঁট ঢুকিয়ে খাবার খুঁজে বেড়ায়। এদের খাদ্যতালিকার বিরাট অংশ জুড়ে রয়েছে শামুক, ঝিনুক আর গুগলি। এছাড়া ছোট স্তন্যপায়ী প্রাণী, ব্যাঙ ও কাঁকড়াও খায়। সচরাচর জলের নিচে শামুকের খোলক ভেঙে এরা জলের উপর মাথা তুলে শামুকের মাংস গিলে খায়। সাধারনত এর থেকেই শামুক খোল নামে পরিচিত এশিয় মহাদেশের এই পাখি ।

স্বাস্থ্য বিষয়ক খবর পড়তেে এখনই ক্লিক করুন–




Pages