এ কোন বিশ্বভারতী ? রবীন্দ্রনাথের গানকেই বিকৃত ! - SAIKOTBHUMI

Breaking

Friday, March 6, 2020

এ কোন বিশ্বভারতী ? রবীন্দ্রনাথের গানকেই বিকৃত !



 কলকাতা :  রবীন্দ্রনাথের গান বিকৃত করে আবির দিয়ে বুকে-পিঠে লেখা অশ্লীল শব্দ। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বসন্ত উৎসব ঘিরে এই ছবি বিতর্ক কাণ্ডে স্পষ্ট হল বহিরাগত যোগ। নিজেদের কৃতকর্মের জন্য 'ক্ষমা' চাইতে বিশ্ববিদ্যালয়ে এল অভিযুক্ত ৫ ছাত্রছাত্রী। অভিযুক্তরা প্রত্যেকেই হুগলির বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। তাদের দাবি, তারা ভুল করে ফেলেছে। পাশাপাশি তাদের ছবি বিকৃত করা হয়েছে বলেও পাল্টা দাবি করেছে অভিযুক্ত ছাত্রছাত্রীরা।রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিটি রোড ক্যাম্পাসের দোল উত্সবের কয়েকটি ছবি ঘিরে বিতর্ক ছড়ায়। ভাইরাল হয়ে যাওয়া ছবিতে দেখা যায়, একদল যুবক-যুবতীর খোলা পিঠে-বুকে আবির দিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান বিকৃত করে অশ্লীল শব্দ লেখা। ছবি ঘিরে বিতর্ক শুরু হতেই শোরগোল দেখা দেয়। ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে সিঁথি থানায় অভিযোগ দায়ের করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়কে বদনাম করার চেষ্টা করা হয়েছে। এই মর্মে থানায় অভিযোগ দায়ের করে কর্তৃপক্ষ। 


এরপরই রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, ছবি বিতর্ক কাণ্ডে জড়িতদের কয়েকজনকে চিহ্নিত করা গিয়েছে। যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, তারা চন্দননগর ও চুঁচুড়ার বাসিন্দা। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে তাদের কোনও যোগ নেই বলেও জানানো হয়। এই পরিস্থিতিতে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে আগামী বছর থেকে বসন্ত উৎসব বন্ধ করে দেওয়া হবে কিনা, ইতিমধ্যেই সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিটি রোড ক্যাম্পাসের দোল উত্সবের কয়েকটি ছবি ঘিরে বিতর্ক ছড়ায়। ভাইরাল হয়ে যাওয়া ছবিতে দেখা যায়, একদল যুবক-যুবতীর খোলা পিঠে-বুকে আবির দিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান বিকৃত করে অশ্লীল শব্দ লেখা। ছবি ঘিরে বিতর্ক শুরু হতেই শোরগোল দেখা দেয়। 


ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে সিঁথি থানায় অভিযোগ দায়ের করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়কে বদনাম করার চেষ্টা করা হয়েছে। এই মর্মে থানায় অভিযোগ দায়ের করে কর্তৃপক্ষ।  এরপরই রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, ছবি বিতর্ক কাণ্ডে জড়িতদের কয়েকজনকে চিহ্নিত করা গিয়েছে। যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, তারা চন্দননগর ও চুঁচুড়ার বাসিন্দা। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে তাদের কোনও যোগ নেই বলেও জানানো হয়। এই পরিস্থিতিতে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে আগামী বছর থেকে বসন্ত উৎসব বন্ধ করে দেওয়া হবে কিনা, ইতিমধ্যেই সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।

Pages