রাস্তায় এক হাটু কাদা তুবও হুস নেই প্রশাসনের চিন্তায় গ্যারলডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দারা - SAIKOTBHUMI

Breaking

Saturday, August 10, 2019

রাস্তায় এক হাটু কাদা তুবও হুস নেই প্রশাসনের চিন্তায় গ্যারলডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দারা



বাঁকুড়া : রাস্তা দিয়ে মানুষ এক গন্তব্য থেকে আরেক গন্তব্যে যায়,কিন্তু পাত্রসায়ের এর হামিরপুর অঞ্চলের গ্যারলডাঙ্গা গ্রামের রাস্তার চিত্রটা একটু আলাদা|আপনারা প্রথমে মনে করবেন লম্বা করে কাঁদা করা রয়েছে ধান লাগাবার জন্য কিন্তু এই পথেই জীবনের ঝুকি নিয়ে পারাপার করছে স্কুল ছাত্র থেকে সাধারণ মানুষ|একবিংশ শতাব্দীতে এসে রাজনৈতিক দল বলছে "সব কা সাথ সব কা বিকাশ" কিন্তু গ্যারলডাঙ্গার মানুষের বিকাশ কোথায়? অন্য দিকে রাজ্য সরকার চালু করেছে "দিদিকে বলো"গাড়োল ডাঙ্গার মানুষ যাদের জীবিকা নির্বাহের একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যমে এই রাস্তার ব্যাপারে বার বার স্থানীয় পঞ্চায়েত কে জানিযেও কেনো সুরাহা হয়নি, তবে কি রাস্তায় ধান লাগিয়ে তাঁদের রাস্তা খারাপেরে কথা দিদির কাছে পৌঁছাতে পারবে? সেটাই এখন দেখার |

স্থানীয় বাসিন্দা নন্দিতা মন্ডল জানায় স্থানীয় পঞ্চায়েতে জানিয়েছি ভিডিও অফিসে জানিয়েছে কিন্তু কোন কাজ হয়নি যে কারনে আজ আমাদের গ্রামের ছেলেরা মিলে রাস্তাটা কোন রকম ভাবে একটু পরিষ্কার করে সে যেন হেঁটে চলাফেরা করা যায় |

রাস্তার খারাপের চিত্র মোবাইলে বন্ধি করে স্থানীয় পঞ্চায়েত কে দেখিয়েও কেনো রাস্তাটা মেরামত হয়নি বলে ভোট বয়কটের হুঁশিয়ারি দিয়েছে স্থানীয় বাসিন্দা তুষার বিশ্বাস বলেন|


এই বিষিয়ে আমরা হামির পুর পঞ্চায়েত প্রধান শেখ সাদ্দাম হোসেন কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন গ্যারলডাঙার 1.5 কিলোমিটার রাস্তা কিছুটা আমরা কংক্রিট ঢালাই করেছি আর দ্বিতীয় ফেজ বাকি আছে এটা আমাদের অ্যাকশন প্ল্যান এ ধরানো আছে যথাসম্ভব রাস্তাটি তাড়াতাড়ি ঠিক করার ব্যবস্থা করব , যেহেতু রাস্তাটা খুবই খারাপ তাই যতদিন না দ্বিতীয় ফেজ চালু হচ্ছে এই বর্ষার স্থানীয় বাসিন্দাদের চলাচল করার জন্য মোরাম দিয়ে রাস্তাটা ব্যবহারের উপযোগী করে তোলার চেষ্টা করব |

Pages